|


Titli Khan

Published:
2018-09-11 13:31:57 BdST

বাংলাদেশে নারীদের ফেসবুক গ্রুপ: কীভাবে সমস্যার সমাধান করছেন তারা?


ঢাকার বনশ্রী এলাকার লায়লা রিংকি সম্প্রতি অসুখে তাঁর মাকে হারিয়েছেন। সে সময় শোকে কাতর এই তরুণীর টিকে থাকার সঙ্গী হয়েছিলেন তারই এলাকার কয়েকজন বড় আপু।

যাদের কাছে নিজের কষ্টের কথা বলার সুযোগ পেয়েছেন লায়লা।

তিনি বলছিলেন, "আমি চাইলে আমার ভাইবোনের কাছেও যেতে পারতাম। কিন্তু ওরাও তো ওদের মা হারিয়েছে। আমি প্রফেশনাল কারো কাছে যাইনি কারণ তাদের সহায়তার পদ্ধতি আমার মনোপুত হয়নি। এরকম অবস্থায় শক্তি নেটওয়ার্কের এক আপু আমার কথা শুনে আমাকে প্রচুর সহায়তা করেছেন"

তিনি বলছিলেন তারই মতো কয়েক তরুণীর তৈরি শক্তি নেটওয়ার্কের কথা। যা আসলে এলাকা ভিত্তিক মেয়েদের বন্ধুত্বের নেটওয়ার্ক।

এই গ্রুপের মেয়েদের একে অপরকে সহায়তার আরেকটি নমুনা হল, একদিন সদস্যদের একজন ঢাকায় ফিরেছেন অনেক রাতে।

তার বাড়ির দরজা বন্ধ করে দিয়েছেন বাড়িওয়ালা।

সেসময় তিনিও শরণাপন্ন হয়েছেন তার গ্রুপের সদস্য কোন বন্ধুর। যার বাসায় দিব্যি সেদিন রাতে আশ্রয় পেয়েছিলেন।

ঢাকার ১৩ টি এলাকায় তাদের এমন গ্রুপ রয়েছে। তাদের অনেকেই একে অপরের অজানা ছিলেন।

যারা শুধু ফেসবুকেই সীমাবদ্ধ না থেকে আড্ডা থেকে শুরু করে নানা গভীর সামাজিক সমস্যায় একে অপরের বিপদের সঙ্গী হয়ে থাকেন।

২০১৫ সালে পহেলা বৈশাখের উৎসবে প্রকাশ্যে গণহারে নারীদের যৌন হয়রানির ঘটনার পর থেকে এর যাত্রা শুরু।

কিন্তু কেন তারা এমন একটি বন্ধুত্বের নেটওয়ার্ক তৈরির প্রয়োজন বোধ করলেন? আর এটি কিভাবে কাজ করে?

লায়লা রিংকি বলছেন, "একটা জিনিস ছেলেদের মধ্যে আছে যেমন ওরা পাড়ায় একসাথে চা খায়, নামাজ পড়ে। পাড়ায় ওদের বন্ধু সংখ্যা অনেক বড়। কোন কিছু হলে ওরা এক হয়ে বলতে পারে আমার পাড়ায় এসো দেখিয়ে দেবো। কিন্তু মেয়েদের সেটা নেই। "

"তো ধরুন যদি আমার এলাকারই কোন আপুর সাথে আমার বন্ধুত্ব থাকে বা অন্য কোন এলাকায় আমি কোন বিপদে পড়লাম। ঐ এলাকায় আমাদের নেটওয়ার্কের যে আছে তার কাছে আমি ফোন দিয়ে সহায়তা চাইতে পারবো।"

অন্য জেলাগুলোতেও একই ব্যবস্থা নয় কেন? এসব ধারনা থেকেই আমরা চিন্তা করলাম এলাকা ভিত্তিক একটা বন্ধুত্বের নেটওয়ার্ক করা যায় কিনা" ।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা