October 26, 2020, 10:15 am


মাদারীপুর প্রতিনিধি

Published:
2020-09-30 13:28:50 BdST

মাদারীপুরে মহিলা সংস্থার দেয়াল চুরি


এতদিন পুকুর চুরি কথা জানা থাকলেও এবার মাদারীপুরে ঘটেছে দেয়াল চুরির ঘটনা। মাদারীপুর মহিলা সংস্থার কার্যালয়ে দেয়াল নির্মাণ না করেই আত্মসাৎ করা হয়েছে দেয়াল নির্মাণের টাকা। 

দেয়াল নির্মাণ না করেই ৩ লাখ ৪৫ হাজার ২৯৮ টাকা এবং ভাড়াকৃত ভবনের মাসিক ভাড়া ৩ হাজার টাকা বেশি দেখিয়ে ৪০ মাসে আরও ১ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলার সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন পল্লবীর বিরুদ্ধে।

অফিসের নথিপত্র অনুযায়ী, মাদারীপুর শহরের শকুনী লেকের দক্ষিণপাড়ে অবস্থিত প্রায় ১৫ শতাংশ জমির উপর জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলা কার্যালয়টি অবস্থিত। দুটি টিনের ঘরে চলে প্রশাসনিক কার্যক্রম। অফিসটির দক্ষিণ ও পশ্চিম (আংশিক) অংশে অনেক পুরাতন জরাজীর্ণ একটি দেয়াল রয়েছে।

২০১৬ সালে জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলার সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন পল্লবীর দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে একটি দেয়াল নির্মাণের জন্য বিল ভাউচারের মাধ্যমে দেয়াল নির্মাণ বাবদ ৩ লাখ ৪৫ হাজার টাকা উত্তোলন করেন।

কিন্তু সরেজমিনে দেখা গেছে, নথিপত্রে দেয়াল নির্মাণের কথা থাকলেও দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে কোন প্রকার পাকা দেয়ালের অস্তিত্ব নেই।

অফিসটির দক্ষিণাংশে কয়েকটি খুঁটি ও নারিকেলের পাতা দিয়ে বেড়া দিয়ে ঘেরা। পশ্চিমাংশে (আংশিক) টিন দিয়ে বেড়া দেয়া। এছাড়া পশ্চিমদিকের কিছু অংশে জরাজীর্ণ অনেক পুরাতন একটি ভাঙ্গা দেয়াল।

এছাড়া জাতীয় মহিলা সংস্থার ব্লক-বাটিক প্রশিক্ষণের জন্য শিল্পকলা একাডেমির পুরাতন ভবনটির ঘর-ভাড়ার চুক্তিপত্রে ১৩ হাজার টাকা মাসিক ভাড়া দেখানো হলেও প্রকৃতপক্ষে ভাড়া প্রদান করা হচ্ছে ১০ হাজার টাকা।

ফলে গত ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাস থেকে সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন পল্লবীর মেয়াদকাল পর্যন্ত অর্থাৎ ৪০ মাসে প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা করে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা আত্মসাতেরও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উল্লেখ্য যে, সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন পল্লবী ২০১৬ সালের ৬ জুন থেকে ২০২০ সালের ১৭ মে পর্যন্ত চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

দেয়াল নির্মাণের ব্যাপারে অফিসে কর্মরত, ঝাড়ুদার ফজিলাতুননেছা জানান, আমি ৪ বছর যাবৎ এখানে কর্মরত রয়েছি কিন্তু এর মধ্যে কোন প্রকার দেয়াল নির্মাণ করা হয় নাই।

জাতীয় মহিলা সংস্থার মাদারীপুর জেলার ফিল্ড কো-অর্ডিনেটর মো. আনিসুর রহমান এফটি টীমকে বলেন, "এসব বিষয়ে সাবেক চেয়ারম্যানই সব জানেন। আমি কিছু জানি না।"

জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলা চেয়ারম্যান রেহেনা পারভীন লিপা (মন্ত্রণালয় কর্তৃক কমিটি বাতিল) জানান, আমি চলতি বছর ১৭ মে চেয়ারম্যান হিসেবে জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলায় যোগদান করেছি। এসব অভিযোগ আগের চেয়ারম্যানের মেয়াদের সময়ে।"

তিনি বলেন, "অফিসের নথিপত্র অনুযায়ী কার্যালয়টির দক্ষিণ-পশ্চিমাংশে একটি দেয়াল নির্মাণ বাবদ ৩ লাখ ৪৫ হাজার ২৯৮ টাকা ব্যয় দেখানো হয়েছে। কিন্তু আমি এরকম কোন দেয়ালের অস্তিত্ব পাইনি। এছাড়া আমি আমাদের ভাড়াকৃত শিল্পকলা একাডেমির মাসিক ভাড়া প্রদান করতে গিয়ে দেখি তার ভাড়া ১০ হাজার টাকা, কিন্তু নথিপত্রে রয়েছে ১৩ হাজার টাকা। এসব অনিয়মের বিষয়ে আমি মাদারীপুরের জেলা প্রশাসকের নিকট জানিয়েছি।"

তিনি আরও জানান, "আমাদের নতুন কমিটি চলতি বছর ১৭ মে অনুমোদন পেলেও গত ১ সেপ্টেম্বর তারিখে মন্ত্রণালয় পুনরায় বাতিল করে জেলা প্রশাসককে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু জেলা প্রশাসক এখনও আমার থেকে দায়িত্ব বুঝে নেন নাই।"

তিনি আরও বলেন, "আমি যখন এ অফিসে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ করি তখন অফিসটি ছিলই খুবই জরাজীর্ণ। আমি যোগদান করেই বেশ কিছু সংস্কার করেছি এবং একটি গভীর নলকুপ স্থাপন করেছি। কিন্তু মন্ত্রণালয় থেকে কেন আমাদের নতুন কমিটিকে মাত্র তিন মাসের মাথায় বাতিল করা হলো তার কোন কারণ খুঁজে পাইনি। তাই আমরা মন্ত্রণালয়ের উক্ত আদেশের বিষয়ে হাইকোর্টে একটি আপীল দায়ের করেছি।'

অভিযোগের বিষয়ে সাবেক চেয়ারম্যান ফরিদা ইয়াসমিন পল্লবী মোবাইল ফোনে জানান, ‘আমি এবং জেলা কর্মকর্তা অফিসিয়াল কাজ অফিসিয়ালভাবে সম্পন্ন করেছি। বিষয়টি নিয়ে অডিট হয়েছে। পাঁচ বছরের আগের কথা সব কিছু পুরোপুরি মনে নেই।’

অভিযোগের বিষয়ে জেলা প্রশাসক ডা. রহিমা খাতুন বলেন, চলতি বছরের কমিটি মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাতিল করে আমাকে জাতীয় মহিলা সংস্থা মাদারীপুর জেলার চেয়ারম্যানের দায়িত্ব প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু আমি এখনও দায়িত্ব গ্রহণ করি নাই। দেয়াল নির্মাণে অনিয়ম ও ভাড়ার বিষয়ে তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা