July 25, 2021, 5:13 am


নিজস্ব প্রতিবেদক

Published:
2021-06-13 09:57:43 BdST

শিবচরে ইউপি নির্বাচন নিরপেক্ষ করতে চিফ হুইপ লিটন চৌধুরীর জিরো টলারেন্স


প্রথম দফা ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে মাদারীপুরের শিবচরের ১৩ ইউনিয়নে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা উৎসবে রূপ নিয়েছে।

মূলত আওয়ামী লীগ প্রার্থিতা উন্মুক্ত করায় প্রার্থীদের সমারোহে উৎসবের রং ছড়িয়ে পড়েছে গ্রাম থেকে গ্রামে। নির্বাচনে বিএনপি কেন্দ্রীয়ভাবে অংশ না নিলেও বিএনপি প্রার্থীরাও স্বতন্ত্র হিসেবে ভোটযুদ্ধে অংশ নিচ্ছে।

এছাড়াও মেম্বার ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদেও রয়েছে একাধিক নারী প্রার্থীদের ছড়াছড়ি।

প্রার্থী ও ভোটাররা সকলেই খুশি ভোট নিয়ে এমন উৎসবে। এদিকে আচরণবিধি বজায় রাখতে প্রশাসনের তৎপরতাও চোখে পড়ার মতো। নির্বাচন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী।

চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী স্থানীয় জনগনকে ভোটাধিকার প্রয়োগে নির্ভয়ে  ভোটকেন্দ্রে যেতে উৎসাহিত করার পাশাপাশি নির্বাচনকে নিরপেক্ষ, পক্ষপাতহীন এবং প্রভাবমুক্ত রাখতে কঠোর অবস্থান গ্রহন করেছেন।

তিনি স্থানীয় প্রশাসনকে নিরপেক্ষভাবে দ্বায়িত্ব পালনের জন্য নির্দেশ দেয়ার পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীদেরকেও কঠোর ভাষায় সতর্ক করেছেন।

চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর দৃঢ় অবস্থান এবং নির্বাচনকে বিতর্কমুক্ত রাখতে তার উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছে স্থানীয় জনগন। 

স্থানীয় বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে দেখা গেছে যে তারা চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর কথায় আস্থা রেখেই নির্বাচনে ভোট দিতে ইচ্ছুক। আর একারনেই শিবচরে এখন ভোটের হাওয়া বইছে। গ্রামে গ্রামে বিরাজ করছে উৎসবমুখর পরিবেশ।

সরেজমিনে জানা যায়, দেশের সকল ইউনিয়নে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হলেও শিবচরের ১৩ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থিতা উন্মুক্ত করা হয়েছে। গত ২৩ জানুয়ারি স্থানীয় সংসদ সদস্য চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর উপস্থিতিতে উপজেলা আওয়ামী লীগ বর্ধিত সভা করে সর্বসম্মতভাবে প্রার্থিতা উন্মুক্ত রাখার সুপারিশ গৃহীত হয়। বিষয়টি আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পাঠালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মনোনয়ন বোর্ডের সভায় তা গ্রহণ করেন।

এরপর থেকেই শিবচর উপজেলাজুড়ে যেন উৎসবের আমেজ বইছে। অসংখ্য প্রার্থী আওয়ামী লীগের কাছে সমর্থন চেয়ে আবেদন করলে ৫৩ জন প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছে সংগঠনটি। ঘরে ঘরে এখন প্রার্থীদের পদচারণ আর প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি। প্রতিটি ইউনিয়নেই আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা প্রার্থী হয়ে মাঠে রয়েছেন।

পদ্মা পারের ইউনিয়ন মাদবরের চর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ইউনিয়ন। এখানে সবসময়ই হেভিওয়েট প্রার্থীরা নির্বাচন করে থাকেন। আসন্ন নির্বাচনেও দুইজন হেভিওয়েট প্রার্থী নির্বাচনী লড়াইয়ে অংশ নিচ্ছেন। বর্তমান চেয়ারম্যান মাহমুদ চৌধুরী মোটরসাইকেল প্রতীকে এবং সাইদুর রহমান (বাবুল হাওলাদার) টেবিল ফ্যান প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। এছাড়াও এখানে রয়েছেন আরও একাধিক প্রার্থী।

১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে সবচেয়ে বেশী জমজমাট নির্বাচনী প্রচারণা হচ্ছে মাদবরের চর ইউনিয়নে। এই ইউনিয়নের নির্বাচনকে কেন্দ্র করে জনগনের আগ্রহ একটু বেশী। কারন বর্তমান চেয়ারম্যান মাহমুদ চৌধুরী মাদবরের চরের ঐতিহ্যবাহী চৌধুরী পরিবারের সন্তান। অন্যদিকে সাইদুর রহমান (বাবুল হাওলাদার) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ ও প্রয়াত শ্রমিক লীগ নেতা ও শিবচরের দানবীর হিসেবে পরিচিত শামসুল আলম বকুল হাওলাদারের ছোট ভাই। দুই প্রার্থীই নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। দুজনই নির্বাচনকে কলুষমুক্ত এবং প্রভাবমুক্ত রাখতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

এলাকায় সরেজমিনে নির্বাচনী উৎসব পর্যবেক্ষণ করে এবং স্থানীয় জনগনের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, প্রায় সকল প্রার্থীই একটি সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ এবং সবার অংশগ্রহনে অবাধ ও শান্তিপূর্ণ ভোট উৎসব উপহার দিতে মরিয়া। তবে একটি সুবিধাবাদী মহল নির্বাচন এবং চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর ঘোষিত  জিরো টলারেন্স নীতিকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছে। তারা এলাকায় রাতে গোপনে বলে বেড়াচ্ছে যে, এই নির্বাচনে চীফ হুইপের পছন্দের প্রার্থী রয়েছে। ভোটের দিন কেন্দ্রে প্রশাসন তাদের পক্ষে কাজ করবে। এরা মূলত হাট-ঘাট কেন্দ্রিক সুবিধাবাদী ও স্বঘোষিত নেতা; যাদের এলাকায় সবাই হাইব্রিড নেতা বলে জানে। 

তবে যে যাই বলুক না কেনো, স্থানীয় জনগন শেষ পর্যন্ত  চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীর কথায় আস্থা রেখেই ভোট দিবেন এবং তারা আশাবাদী যে সুন্দর একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মাদবরের চর ইউনিয়নে। বাংলাদেশে নির্বাচন ঘিরে জনগনের মধ্যে যে নেতিবাচক মনোভাব এখনো বিরাজ করছে তা শিবচরের আসন্ন এই ইউপি নির্বাচনে দূর হবে বলে তারা আশাবাদী।  

এদিকে, করোনা ভাইরাস মোকাবিলায় বিশেষ অবদানের জন্য স্বর্ণপদক পাওয়া আলোচিত পাচ্চর ইউনিয়নের দুইবারের সফল চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা হাজী মো. দেলোয়ার হাওলাদার বলেন, ‘এবারের নির্বাচনে সবাই অংশ নেওয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে। এজন্য ধন্যবাদ পাওয়ার মূল দাবিদার চিফ হুইপ মহোদয়।’

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. হারুন অর রশীদ বলেন, ‘এ উপজেলায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীতা উন্মুক্ত করায় স্বাভাবিকভাবেই অনেক প্রার্থী নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন। নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘ইউপি নির্বাচন ঘিরে শিবচরে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। এরমাঝে আচরণ বিধি বজায় রাখতে প্রশাসনের সার্বক্ষণিক অভিযান অব্যাহত রয়েছে। নির্বাচন সুষ্ঠু করতে আমাদের প্রতি কঠোর নির্দেশনা রয়েছে।’

শিবচরের ১৩ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৭৩ জন, মেম্বার পদে ৪১০জন ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার পদে ১১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা