April 15, 2024, 2:22 pm


বিশেষ প্রতিবেদক:

Published:
2024-03-31 15:22:14 BdST

পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তর দায়িত্বহীনতা না উদাসীনতা?


পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত ও সমালোচিত সংবাদ ইতোমধ্যে গণমাধ্যমের শিরোনাম হয়েছে। দ্য ফিনান্স টুডে সহ একাধিক জাতীয় পত্রিকায় মুখে খাওয়ার ওরাল পিল টেন্ডার বাতিল। জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রী ওরাল পিলের ভয়াবহ সংকট কালীন সময়ে সিন্ডিকেট এর ব্যবসা রক্ষার্থে সর্বনিম্ন দরদাতার টেন্ডার বাতিল করেছে উপকরণ সরবরাহ ইউনিটের পরিচালক সদ্য নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তা জাকিয়া আক্তার। দেশব্যাপী এ নিয়ে ব্যাপক সমালোচনা হলে মন্ত্রনালয়ের টনক নড়ে। এরপর আবার নতুন করে বার্ষিক প্রকিউরমেন্ট প্লান (গুডস) অফ ডিজিএফপি ফর ২০২৩-২০২৪ (ডেভেলপমেন্ট) পাস করা হয়।

উক্ত প্লান এ দেখা যায় আরপি (জিওবি) ১৯৫৫০ লাখ টাকা ও জিওবি (ডেভেলপমেন্ট) ৭২০০ লাখ টাকা সর্বমোট- ২৬৭৫০ লাখ টাকা (২শত ৬২ কোটি ৫০ লাখ) টাকা প্রকল্প হাতে নেয়া হয়। ৫টি সাইকেলে মোট ৯ মিলিয়ন করে ৪৫ মিলিয়ন ৩য় জেনারেশন পিল ক্রয় এর পরিকল্পনা পাশ করা হয়। উক্ত বার্ষিক পরিকল্পনায় দেখা যায় যে টেন্ডার আহ্বান করার তারিখ ৩১/১/২৪। কিন্তু পরিকল্পনা স্বাক্ষরিত তারিখ ২৭/৩/২০২৪ ইং। রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ একটি অধিদপ্তরের ৫জন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার স্বাক্ষরিত। উক্ত পরিকল্পনা যদি কাগজ পত্রের ওপর ভিত্তি করে বাস্তবায়ন করা হয় তাহলে উক্ত তারিখের হিসেবটি কিভাবে মিলানো হবে? মোট কথা হলো দায়িত্বশীলতা। একজন কর্মকর্তা ভুল করতে পারে কিন্তু ৫জন কর্মকর্তা কিভাবে ভুল করল?

যার মধ্যে রয়েছে অধিদপ্তরের সর্বোচ্চ কর্মকর্তা মহাপরিচালক, পরিচালক (উপকরন ও সংগ্রহ) উপ-পরিচালক, উপকরণ ও সরবরাহ ও সহকারী পরিচালক (বৈদেশিক, সংগ্রহ ) সংগ্রহ কর্মকর্তা,উপকরন ও সরবরাহ ইউনিট।
এর থেকে বোঝা যায় যে কাজের প্রতি উক্ত কর্মকর্তাদের দায়িত্বশীলতা কতটুকু? সরকারের গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বশীল উক্ত কর্মকর্তাদের দিয়ে কিভাবে শত শত কোটি টাকার কেনাকাটা নিষ্পত্তি করা সম্ভব? এ প্রশ্ন দেশবাসীর।

 

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা