মোঃ সাইফুল ইসলাম শিপন

Published:
2020-03-29 10:22:33 BdST

করোনা: বাড়ি ভাড়া নেবেন না কেরানীগঞ্জের এই বাড়ীওয়ালা


বিশেষ প্রতিনিধি

করোনাকে পুঁজি করে ব্যবসায়ীরা সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে যেখানে বাড়তি টাকা আদায় করছে, সেখানে ব্যতিক্রম ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের বাসিন্দা হাজী মোঃ মুরাদ হোসেন উদারতার দৃষ্টান্ত রাখলেন। তিনি ঘোষণা দিয়েছেন এই সংকটের সময় ভাড়াটিয়াদের থেকে বাড়ি ভাড়া নেবেন না।

তাই তিনি নিজ উদ্যোগে এগিয়ে এসেছেন এবং তার বাড়িতে বসবাসরত ভাড়াটিয়াদের মার্চ মাসের প্রায় ৩ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার বাড়িভাড়া মওকুফ করে দিয়েছেন তিনি!

একটি নোটিশে তিনি লিখেন, প্রিয় ভাড়াটিয়াগণ, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে আপনাদের মার্চ মাসের ভাড়া মওকুফ করা হলো। বিশেষ অনুরোধ-১. ভাড়ার টাকা দিয়ে পারলে কারও সাহায্য করুন। ২. ইলেকট্রিক বিল সময়মতো নিজ দায়িত্বে পরিশোধ করুন। ৩. কিছুক্ষণ পরপর সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নেবেন। ৪. অপ্রয়োজনে বাসার বাইরে যাবেন না।

মুরাদ বলেন, আমাদের সবদিক থেকে এ রোগের বিরুদ্ধে লড়তে হবে। সরকার একা কিছুই করতে পারবে না। করোনা ভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করার কারণে দেশের সবকিছুই স্থগিত হয়ে পড়েছে। মানুষ কর্মস্থলে যেতে পারছে না। তাই আমি এদেশের একজন ক্ষুদ্র নাগরিক হিসেবে আমার বাসার সব ভাড়াটিয়ার মার্চ মাসের ভাড়া মওকুফ করে দিলাম। আমি বলব, বাংলাদেশের সব বাড়িওয়ালার এই দুর্যোগের সময় ভাড়াটিয়াদের পাশে দাঁড়ানো উচিত।

তিনি আরও জানান, যারা ভাড়া বাসায় থাকেন এ সংকটের সময়েও সে পরিবারগুলোর মুখে যেন হাসি থাকে। এ জন্য রাজধানীসহ সারা দেশের বাড়িওয়ালাদের এ বিষয়ে এগিয়ে আসতে হবে।

মুরাদ হোসেনের বাসার ভাড়াটিয়ারা এফটি টীমের বিশেষ প্রতিনিধি মোঃ সাইফুল ইসলাম শিপনকে বলেন, আমরা এক বছর ধরে এখানে আছি। বাড়ির মালিক খবর দিয়েছেন আগামী মাসে তিনি আমাদের কাছ থেকে ভাড়া নেবেন না। এ খবরে চিন্তামুক্ত হয়েছি আমরা। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হতে পরামর্শ দিয়েছেন ও কোন অসুবিধা হলে তাকে জানানোর কথা বলেছেন। আমাদের মালিক সুখে দুঃখে আমাদের পাশে থাকেন।

তারা বলেন, এ দুর্যোগে এক মাসের বাড়ি ভাড়া মওকুফ করা আমাদের জন্য বড় কিছু। বাড়ি মালিকের এমন সিদ্ধান্তে আমরা সবাই খুশি হয়েছি। কারণ এ কদিন আমাদের মনে টেনশন কাজ করছিল।

হাজী মোঃ মুরাদ হোসেন এফটি টীমকে বলেন, আমি তো ঘরের মালিক, তাই ভাড়াটিয়াদের সুখ-দুঃখ আমাদের বুঝতে হবে। এ দুর্যোগে তাদের মানবিক আশ্রয় দিলাম ধরে নিয়ে আমি আগামী মাসের ভাড়া নিব না। এ দুঃসময়ে তাদের পাশে থাকতে না পারলে, যেন জীবনটা বৃথা মনে করি আমি। এ দুর্যোগে আমাদের সবাইকে সহযোগিতার মনোভাব তৈরি করতে হবে। সমাজে অনেক বিত্তবান রয়েছে তারা যদি স্ব স্ব অবস্থানে থেকে এগিয়ে আসে, তাহলে এ করোনা পরিস্থিতি আমরা সহজে মোকাবেলা করতে পারব।

তার এমন উদ্যোগের প্রশংসা করছেন অনেকেই। এটিকে অনেকে উদারতা বলছেন। অন্যান্য বাড়িওয়ালাদেরও ভাড়াটিয়াদের পাশে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন অনেকে।

হাজী মোঃ মুরাদ হোসেন ঢাকার দক্ষিন কেরানীগঞ্জ এর শুভাঢ্যা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার। তিনি শুভাঢ্যা ইউনিয়ন ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক।

এছাড়াও তিনি স্থানীয় চুনকুটিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির অন্যতম সদস্য এবং মুসলিমনগর জামে মসজিদের মুতল্লি। তিনি হাজী মাকসুদা দেলোয়ার স্কুল এন্ড কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি।

এদিকে কেরাণীগঞ্জ উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কামরুল হাসান সোহেল মুরাদ হোসেনের এমন পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন, দেশের এই জরুরি মুহূর্তে কেরানীগঞ্জের বিত্তবানদের এগিয়ে আসতে হবে। সরকারের পাশাপাশি যারা সমাজের উন্নয়নে নিজ উদ্যোগে ভূমিকা রাখেন, তারা যদি বর্তমান সময়ে এগিয়ে আসেন তাহলে দুঃখী মানুষের অনেক উপকার হবে। 

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা