সামি

Published:
2020-03-29 17:08:50 BdST

অনিশ্চিত জিকে শামীমের ৮০০০ নির্মান শ্রমিকের ভবিষ্যত


নিউজ ডেস্কঃ

জি.কে.বি এন্ড কোম্পানী প্রাইভেট লিমিটেড এর চেয়ারম্যান, ঠিকাদার এস.এম. গোলাম কিবরিয়া শামীম গ্রেফতার হয়ে জেলে থাকার কারণে সেখানে কর্মরত প্রায় ৮০০০ নির্মাণ শ্রমিকের দৈনিক খোরাকী, মালামাল সরবরাহকারী ও সাব-কন্টধাক্টরের বিল, প্রায় ৩০০ কর্মচারী ও কর্মকর্তাবৃন্দ যারা নানাবিধ সমস্যায় জর্জরিত হয়ে আজ মানবেতর জীবন যাপন করছেন, বন্ধ রয়েছে তাদের বেতন-ভাতা। একই সাথে সরকার থেকে নির্মাণের জন্য পাওয়া প্রতিষ্ঠানের বিশাল নির্মাণ কর্মযজ্ঞ থেমে আছে বলেও জানায় তারা । আর এরই সাথে থেমে আছে বর্তমান সরকারের এই অংশের উন্নয়ন কর্মকান্ড। শুধু তাই নয় সংশ্লিষ্ঠ প্রকল্প সমুহের সাথে জড়িত রয়েছে নির্মাণে ব্যবহৃত বিভিন্ন পর্যায়ের সাপ্লাইয়ারদের বকেয়া এবং সরবরাহের কাজ।

সরকারের এই শতশত কোটি টাকার নির্মাণ কাজ সম্পন্নের জন্য জি.কে বিল্ডার্সের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত রয়েছে হাজার হাজার পরিবার যারা অনিশ্চিত বেকারত্নের কবলে পড়ে দুর্বিসহ জীবন নির্বাহ করছে। অন্যদিকে এধরনের বড় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সাথে আর্থিক খাতের গুরুত্বপূর্ণ সংশ্লিষ্ঠতা থাকার কারণে সেখানেও নেতিবাচক প্রভাব সৃষ্টি হবার কথা ।

প্রতিষ্ঠানটি থেকে দেওয়া তথ্য মতে, ১৯৯৪ সালে গণপূর্ত অধিদপ্তরের তালিকা ভুক্ত হয় জি.কে বিল্ডার্স। ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে সরকারের অত্যন্ত জনগুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও বিভিন্ন ভবন মান নিশ্চিত করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে হস্তান্তর করে চলেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এদের হস্তান্তর করা কাজের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে -ঢাকার আগারগাঁওস্থ ২টি বেইজমেন্ট সহ ১২-তলা বিশিষ্ট জাতীয় অর্থোপেডিক ও পূনর্বাসন (নিটোর/পঙ্গু হাসপাতাল) এর নব নির্মিত ২টি ভবন, ঢাকার মহাখালীস্থ শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রেলিভার হাসপাতালের মূল ভবন সহ আরো ৪টি কোয়ার্টার ভবন নির্মাণ, ঢাকার বেইলি রোডে শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের কয়েকটি ভবন নির্মাণ, ঢাকার আগারগাঁওয়ে ২টি বেইজমেন্ট সহ ১২তলা বিশিষ্ট মেডিসিন ল্যাবরেটরি এন্ড রেফারেল সেন্টারের ভবন নির্মাণ, ঢাকার আগারগাঁওয়ে ১২তলা বিশিষ্ট জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি যাদুঘর ভবন নির্মাণ, মুন্সিগঞ্জে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারদের জন্য ইঞ্জিনিয়ারিং স্টাফ কলেজের অভ্যন্তরে ৭টি ভবন নির্মাণ, গাজিপুর কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যন্তরে হাসপাতাল ভবন নির্মাণ, মিরপুরে ফায়ার সার্ভিসের অভ্যন্তরে বার্ণ ট্রিটমেন্ট হাসপাতাল ভবন নির্মাণ, ঢাকার তেজগাঁওয়ে রেজিষ্ট্রি অফিস ভবন নির্মাণ, ঢাকার আগারগাঁওয়ে কারিগরী শিক্ষা অধিদপ্তরের মূল ভবন নির্মাণ, ঢাকার আগারগাঁওয়ে পাবলিক সার্ভিস কমিশন ভবনের উর্দ্ধমূখী সম্পধসারণ নির্মাণ, গাজীপুরে র‌্যাব ফোর্সেস ট্রেনিং সেন্টার নির্মাণ, ঢাকার আগারগাঁওয়ে জাতীয় রাজস্ব ভবন প্রথম পর্যায়ের নির্মাণ প্রভৃতি।

তথ্য মতে, জি.কে বিল্ডার্সের একাধিক বৃহৎ নির্মাণ প্রকল্প গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে শুভ উদ্ধোধন করেছেন। পরে প্রতিষ্ঠানটি বড় আকারে কাজ করতে এককমালিকানা থেকে লিমিটেড প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরিত হয় এবং সরকারের ভিশন ২০২১ এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ এর উন্নয়নমূলক বিভিন্ন অগ্রাধিকার প্রকল্পে নির্মাণ শুরু করে। যেখানে সরকারী নিয়ম মেনে প্রতিযোগিতামূলক ওপেন টেন্ডার ও ই-টেন্ডারের মাধ্যমে সর্বনিম্ম দরদাতা হিসেবে বিবেচিত হয়ে নির্ধারিত সময়ে হস্তান্তরের জন্য দ্রুতগতিতে নির্মাণ কর্মকান্ড শুরু করে।

এসব প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে -২য় পর্যায়ে জাতীয় রাজস্ব ভবনের হেড অফিস নির্মাণ প্রকল্প, র‌্যাব সদর দপ্তর নির্মাণ প্রকল্প, শেখ হাসিনা পার্বত্য চট্টগ্রাম কমপ্লেক্স প্রকল্পের অবশিষ্ট অংশ নির্মাণ, বাংলাদেশ সচিবালয়য়ের অভ্যন্তরে নতুন অফিস ভবন (কেবিনেট ভবন) ২০তলা বিশিষ্ট একসাথে ২টি ভবন নির্মাণ, বাংলাদেশ সচিবালয়ের অভ্যন্তরে নতুন ২০-তলা বিশিষ্ট অর্থ ভবন নির্মাণ, নিউরো সায়েন্স হাসপাতালের ৩ টি বেইজমেন্টসহ ১৪-তলা বিশিষ্ট অফিস ভবন নির্মাণ, শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতাল ভবনের উর্ধমূখী সম্পধসারন নির্মাণ, ঢাকার আজিপুরে সিনিয়র সচিবদের জন্য ২০ তলা ২টি আবাসিক ভবন নির্মাণ পকল্প যদিও এর নির্মাণ স্থল এখনো পাওয়া যায়নি, ঢাকার আগারগাঁওয়ে এনজিও ফাউন্ডেশনের ২ টি বেজমেন্টসহ ১৪ তলা বিশিষ্ট ভবন নির্মাণ, মহাখালীতে এ্যাজমা হাসপাতালের উর্দ্ধমূখী সম্পধসারণ নির্মাণ প্রকল্প প্রভৃতি। এসব নির্মাণ কাজে দেশের অন্যতম শীর্ষ পর্যাযের প্রকৌশলীগণ নিযুক্ত রয়েছেন বলে তথ্যে জানা গেছে।

প্রতিষ্ঠানটির তথ্য মতে, জিকে বিল্ডার্স বাংলাদেশ সরকারের অসংখ্য জনগুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ও বিভিন্ন ভবন সুষ্ঠু, সঠিক ও সর্বোচ্চ, গুনগতমান নিশ্চিত করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পূর্ণরূপে সম্পাদন করে সরকারের যথাযথ কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তর করেছে।

সরকারী গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা ব্যতীত প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান এস.এম. গোলাম কিবরিয়া শামীম অন্য কোন নির্মাণ কাজ করতে তেমন আগ্রহ প্রকাশ করেন না বলে জানান এর কর্মকর্তারা।

তাদের মতে, সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডে একাত্ব হয়ে ভূমিকা রাখার জন্য জিকে শামীম তার প্রাণপ্রিয় নেত্রী, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সততা, দৃঢ়তা, কঠোর পরিশ্রম, ইস্পাাত কঠিন মনোবল ও ঈপ্সিত লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য দৃঢ় অঙ্গীকার প্রভৃতি তাকে আকৃষ্ট করে এবং তিনি তা প্রাণপনে অনুসরণ করার চেষ্টা করে এগোতে থাকেন।

তথ্য মতে, এসএম গোলাম কিবরিয়া শামীম সমাজ সেবায় খুবই আন্তরিক। তার জেলা সহ বিভিন্ন এলাকায় মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল, কলেজ, কবরস্থান, গরীব-দুঃখী, কন্যাদ্বায়গ্রস্ত পিতামাতাদের আর্থিক সাহায্য প্রদানসহ নিভৃতে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃদিক কর্মকান্ডে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন।

এসব গৌরবময় কৃতিত্বের জন্য বিভিন্ন তিনি নানা সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন এবং প্রসংশিত হয়েছেন বিভিন্ন ব্যাক্তি প্রতিষ্ঠান থেকে। তিনি রোইং ফেডারেশন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ্যালামনাই এসোসিয়েশন, প্যান-প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেল হেলথ ক্লাব, নব-জাগরণ সমাজ কল্যাণ সংস্থা সহ বিভিন্ন সংগঠনের সদস্য।

তাদের মতে, জিকে বিল্ডার্স সরকারের চলমান নির্মাণ প্রকল্পগুলোতে মান বজায় রেখে দ্রুত নির্মাণ বাস্তবায়ন করে চলছিল। সরকারী অতি জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলোর অনেক অগ্রিম নির্মাণ কাজও সম্পন্ন করা হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী কর্মকর্তারা জানান, তাদের শেষ হওয়া কাজের অনেক বিলও বকেয়া রয়েছে।

এ অবস্থায় প্রতিষ্ঠানটির একক ও যৌথ একাউন্টসহ সকল প্রকার ব্যাংক একাউন্ট অবরুদ্ধ করার কারনে তারা কোন বকেয়া বিলসহ খোরাকি পাচ্ছে না। ফলে তাদের পক্ষে সরকারী জনগুরুত্বপূর্ণ নির্মাণ প্রকল্পের কাজগুলো বাস্তবায়ন করা খুবই দুঃসাধ্য ও কষ্টকর হয়ে পড়েছে। এছাড়াও চলমান প্রকল্পগুলোর নির্মাণ কাজ প্রায় বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে উন্নয়নমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার স্বার্থে এবং প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত বিভিন্ন শ্রমিক কর্মচারী কর্মকর্তাবৃন্দের দুঃসহ ও মানবেতর জীবন যাপন থেকে মুক্তির লক্ষ্যে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন ও মমতাময়ী শেখ হাসিনার প্রতি জি.কে.বি এন্ড কোম্পানী প্রাইভেট লিমিটেড এর সকল ‌ব্যাংক একাউন্ট সচল করার নিমিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আকুল আবেদন জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটির শ্রমিক, কর্মচারী কর্মকর্তারা।

Unauthorized use or reproduction of The Finance Today content for commercial purposes is strictly prohibited.


Popular Article from FT বাংলা